,

ব্রেকিং

বাঁশখালী সমিতি চট্টগ্রামের উপদেষ্টা হলেন কবি হাফিজ রশিদ খান

চট্টগ্রামস্থ বাঁশখালীবাসীদের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাঁশখালী সমিতি চট্টগ্রামের উপদেষ্টা মনোনীত হয়েছেন খ্যাতিমান কবি ও আদিবাসী গবেষক বাঁশখালীর কৃতি সন্তান হাফিজ রশিদ খান।

বাংলাদেশের প্রধান ধারার অন্যতম কবি হাফিজ রশিদ খান। ছোটবেলা থেকে লেখালেখিতে হাতেখড়ি। ২১ বছর বয়সে প্রথম কাব্যগ্রন্থ জোসনা কেমন ফুটেছে’র প্রকাশ। এ পর্যন্ত ১৫টি কাব্য ও আটটি গদ্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।
পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসী জীবনধারা ও সংস্কৃতির ওপর তাঁর রয়েছে সবিশেষ অনুসন্ধিৎসা। ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত ‘আদিবাসী কাব্য’ তাঁকে বাংলাদেশে আদিবাসী জীবনের প্রথম কাব্যকার হিশেবে পরিচিতি দিয়েছে। তিনি ১৯৯০ সাল থেকে বাংলাদেশের আদিবাসী সংস্কৃতির পরিচর্যায় ছোট কাগজ ‘সমুজ্জ্বল সুবাতাস’ সম্পাদনা করে আসছেন। এ পর্যন্ত যার ১৮টি সংখ্যা প্রকাশিত হয়ে সচেতনমহলের সপ্রশংস দৃষ্টি কেড়েছে। পুষ্পকরথ (প্রথম প্রকাশ : ১৯৯৩) তাঁর সম্পাদিত আরেকটি প্রভাবক ছোট কাগজ, ২০১৫ সাল পর্যন্ত যার ৮টি সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছে।
হাফিজ রশিদ খানের দুই কন্যাসন্তান নাইসা হাফিজ খান ও রাইসা হাফিজ খান। নাইসা বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্রিমিনোলজি অ্যান্ড পুলিস সায়েন্স বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষে এবং ছোট মেয়ে রাইসা বাংলাদেশ মহিলা সমিতি উচ্চ বিদ্যালয়-চট্টগ্রামে দশম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত। তাদের মা মিল্লাতুন্নেছা খানম একটি বেসরকারি স্কুলে শিক্ষকতার পেশায় যুক্ত। হাফিজ রশিদ খান বর্তমানে চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশ পত্রিকার বার্তা বিভাগে কর্মরত।
তিনি নক্ষত্র সাহিত্য সংস্কৃতি সংসদ ও বাঁশখালী সাহিত্য পরিষদের উপদেষ্টা হিসেবে যুক্ত আছেন।

বাংলা কবিতায় অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ কবি হাফিজ রশিদ খান বিভিন্ন সাহিত্য সংগঠন, শিল্পসাহিত্যচর্চার কাগজ এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের আদিবাসী সমাজের পক্ষ থেকে সম্মানিত ও পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। তার মধ্যে রয়েছে :

:: ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য সরকারের উদ্যোগে আয়োজিত ড. বি আর আম্বেদকার জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে কবি সম্মাননা, ২০০২
:: চকবাজার পরিবেশ ও সমাজ উন্নয়ন পরিষদ, চট্টগ্রাম সম্মাননা ২০১২
:: বিভিন্ন কোরাস- চেরাগি পাহাড়, চট্টগ্রাম কর্তৃক ‘আদিবাসী জীবনের কাব্যিক রূপকার’ সম্মাননা ২০১৩
:: কবিতা ও প্রবন্ধে আদিবাসীচর্চার স্বীকৃতি স্বরূপ আদিবাসী ফোরাম, চট্টগ্রাম অঞ্চল কর্তৃক সম্মাননা ২০১৩, রাঙামাটি
:: প্রমা আবৃত্তি সংগঠন-চট্টগ্রাম কর্তৃক সম্মাননা ২০১৫
:: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন সাহিত্য পুরস্কার ২০১৬
:: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘চিহ্ন’ সাহিত্য পত্রিকা কর্তৃক সম্পাদিত ছোটকাগজ পুষ্পকরথ-এর জন্য সম্মাননা স্মারক ২০১৬
:: ঢাকার ‘লেখমালা’ সাহিত্যপত্র সম্মাননা ২০১৬
:: খড়িমাটি-চট্টগ্রাম কর্তৃক প্রদত্ত সম্মাননা ২০১৭

হাফিজ রশিদ খান-এর প্রকাশিত গ্রন্থ
কবিতা
জোসনা কেমন ফুটেছে ১৯৮২/ চোরাগোপ্তা ডুবোপাহাড় ১৯৮৮
লোহিত ম্যান্ডোলিন ১৯৯১/ স্বপ্নখ-ের রোকেয়া বেগম রুকু ১৯৯৫
আদিবাসী কাব্য ১৯৯৭ ও ২০০৭ ( দ্বিতীয় সংস্করণ)
টোটেমের রাতে হত্যাকা- ২০০২/ জুমপাহাড়ের ওম ২০০২
এই সুন্দর আমাঙ হারাবো না ২০০৬/ আদিবাসী কবিতাসংগ্রহ ২০১০
ঘূর্ণির গোয়েন্দা ঘেরা ২০১২/ পড়শিওয়ালা জাগো ২০১৩
রোদের পোস্টার ২০১৪/ লর্ড ক্লাইভের পথিকেরা ২০১৫
ডিঙা ভাসে দক্ষিণ সমুদ্রে, ২০১৭/ প্রত্নজীবনের রত্ন, ২০১৭

গদ্য
বাংলাদেশের উপজাতি ও আদিবাসী : অংশীদারিত্বের নতুন দিগন্ত (সম্পাদনা) ১৯৯৩/ আমাদের কবিতা ও আদিবাসী প্রসঙ্গ ২০০১
আদিবাসী প্রবন্ধ ২০০৪/ নির্বাচিত আদিবাসী গদ্য ২০০৫
অরণ্যের সুবাসিত ফুল ২০০৯/ আদিবাসী জীবন আদিবাসী সংস্কৃতি ২০০৯
অলস করতালি ও অন্যান্য প্রবন্ধ, ২০১৬
কবিতার কারাবাস কবিতার মুক্তি, ২০১৮

সম্পাদিত ছোটকাগজ
সমুজ্জ্বল সুবাতাস, প্রথম প্রকাশ : ১৯৯০/ পুষ্পকরথ, প্রথম প্রকাশ : ১৯৯৩

কবি হাফিজ রশিদ খান ২৩ জুন ১৯৬১ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর গ্রামের বাড়ি বাঁশখালীর খানখানাবাদ ইউনিয়নের মাইজপাড়া গ্রামে। পিতা নুরুল আনোয়ার খান ও মাতা নুরুন্নিসা বেগম। বর্তমান নিবাস :খান বাড়ি
৬৭২, হাজি কালামিয়া মুনশি লেন দক্ষিণ শুলকবহর
ডাক : চান্দগাঁও থানা : পাঁচলাইশ, চট্টগ্রাম।
কবি হাফিজ রশিদ খান ১৯৮৮ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক সম্পন্ন করেন।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মতামত