,

ব্রেকিং

ফেল করা শিক্ষার্থীদের নিয়ে দেশের ইতিহাসে প্রথম উদ্যোগ ‘ডিইসি’র

‘ইউ টার্ন ঘুরে দাঁড়াও সাফল্যের পথে’
ফেল করা দোষের কিছু নয়, ফেল করা মানেই হেরে যাওয়া নয়।
ফেল একটি শিক্ষা, একটি অভিজ্ঞতা, ফেল মানে নতুন করে সাফল্যের পথে ঘুরে দাঁড়াবার আরেকটি সূবর্ণ সুযোগ।

২০১৮ সালে এইচ.এস.সি পরীক্ষায় ফেল করেছে এমন শিক্ষার্থীদের নিয়ে শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ মিলনায়তনে চট্টগ্রামের স্বনামধন্য দক্ষতা, ক্যারিয়ার উন্নয়ন এবং সামাজিক নেতৃত্ব বিকাশের শিক্ষা গবেষণা ভিত্তিক সংগঠন ডি ইঞ্জিরিয়াস ক্লাব- ডিইসি’ বাংলাদেশে প্রথমবারের মত আয়োজন করেছে একটি দিনব্যাপী ব্যতিক্রমী কর্মশালা।

প্রতিবছর বাংলাদেশে এইচ.এস.সি পরীক্ষায় ব্যাপক শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয় যার পরিমাণ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে আত্মহত্যা, ডিপ্রেশন, মাদকাসক্তি সহ বহুবিধভাবে অন্ধকার জগতে পা বাড়াচ্ছে অনেক তরুণ-তরুনী। এক্ষেত্রে অনেকাংশে দায়ী সমাজব্যবস্থা ও অভিভাবকগণ।

হতাশায় ভুগতে থাকা এই সব শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ক্যারিয়ার দিক-নির্দেশনা ও দক্ষতা উন্নয়নের সঠিক বাস্তবর্ধমী পথে ধাবিত করার লক্ষে ডি ইঞ্জনিয়ার্স ক্লাব এই আয়োজন করেন, যেখানে চট্টগ্রাম জেলার ৪৪ টি সরকারি বেসরকারি কলেজ থেকে প্রায় ১২২ জন অকৃতর্কায ছাত্র-ছাত্রী অংশগ্রহন করেন।

ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সোমনে কানুনগো’র সভপতিত্বে এবং ক্লাব সেক্রেটারি লোপামুদ্রা নন্দী’র সঞ্চালনায় উক্ত কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান, বিশেষ অতিথি ছিলেন সুচিন্তা বাংলাদেশের সমন্বয়ক এডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরী, আর্ডজাস গ্রুপের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন, ডেল্টা ইমিগ্রেশনের সিইও মোহাম্মদ আলমগীর।

দিনব্যাপী এই কর্মশালায় শিক্ষার্থীদের দিক নির্দেশনামূলক সেশন পরিচালনা করেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা মেজিস্ট্রেট মো. মাশহুদুল কবির, বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইন্সটিটিউট এর উপদেষ্টা কে. আম হাসান রিপন, রাংগস এফসি প্রোপার্টিজের সিইও তানভির শাহরিয়ার রিমন, মেন্টরস চট্টগ্রামের প্রধান মানজুমা মোর্শেদ, ইম্পেক পলিটেকনিক কলেজের অধ্যক্ষ কামরুল হুদা, ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সোমেন কানুনগো ও এইচআর ডেস্কের প্রতিষ্ঠাতা এমরানুল হক।

মতামত