,

বাঁশখালীর ছনুয়ায় প্রকাশ্যে চলছে জুয়ার আসর, দেখার কেউ নেই

বাঁশখালী প্রতিনিধি, নাগরিক নিউজ: বাঁশখালীর ছনুয়ায় প্রকাশ্যে দিবালোকে চলছে জুয়ার আসর। এতে নষ্ট হচ্ছে এলাকার যুব সমাজ। মারাত্মক প্রভাব পড়ছে এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ওপর। প্রতিনিয়ত দেখা যায়, থরে থরে সাজিয়ে রাখা হয়েছে জুয়া খেলার তাস। চারদিকে ঘিরে বসেছে জুয়াড়িরা৷ দিনেরাতে সমানতালে চলছে জুয়ার আসর। এমনকি মাহে রমজানে, শবেবরাত ও শবে কদরের মতো পবিত্র রাতেও জুয়া খেলা থেমে ছিল না। এই চিত্র বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়নের মধুখালী গ্রামের জসীমের দোকান ও নুরুল হক নুইন্নার বসতবাড়ির। এমতাবস্থায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার পাশাপাশি সর্বস্ব হারিয়ে পথে পথে ঘুরছেন এলাকার যুবক ও উঠতি বয়সী কিশোর।

জানা গেছে, ছনুয়া মধুখালী আমজাদ আলীর বাড়ির মৃত মোহাম্মদ আলীর পুত্র জসীম উদ্দিনের চায়ের দোকানে প্রতিনিয়ত চলছে জুয়ার আসর। এ অবস্থায় বিপদগামী হচ্ছে এলাকার যুবসমাজ। বাড়ছে নানান অপরাধ প্রবণতা। গেল বছরের ৭ জুন চট্টগ্রাম নগরের বাকলিয়া থানার নতুন ব্রীজ এলাকায় এক কিশোরীকে চাকরি দেয়ার কথা বলে নিজ বাসায় আটকে রেখে ধর্ষণ করেন জসীম উদ্দিন। পরে ১৫ জুন র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হন জসীম। ওই ঘটনায় বাকলিয়া থানায় জসীম সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই মামলায় জসীম ৪ মাস পর জামিনে বেরিয়ে নিজ গ্রামে এসে অপকর্ম শুরু করেন। তার চায়ের দোকানে রমরমা জুয়ার আসর বসান। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকা একটি মহল ও এক জনপ্রতিনিধির নেতৃত্বে জুয়ার আসর পরিচালনা করছে জসীম উদ্দিন।

সুত্র জানায়, একই এলাকার চরপাড়ার নুরুল হক প্রকাশ নুইন্নার বাড়িতে প্রতিনিয়ত চলছে রমরমা জুয়ার আসর। তার বাড়িতে দূর-দূরান্ত থেকে জুয়া খেলতে আসেন জুয়াড়িরা। জুয়া খেলা শেষে সেখানে মদের আসর বসায় বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। দাগী সন্ত্রাসী নুরুল হক প্রকাশ নুইন্নার বিরুদ্ধে বাঁশখালী থানায় একাধিক মামলা ও অভিযোগ রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মধুখালী এলাকার এক ব্যক্তি বলেন, ‘পুরো রমজান মাস জুয়ার আসর বসায় জসীম। এমনকি শবেবরাত ও শবে কদরের মতো পবিত্র রাতেও জুয়া খেলা থেমে ছিল না। বাঁশখালী থানা পুলিশকে ফোনে আমরা বিষয়টি একাধিকবার অবগত করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি।’

ছনুয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য নুরুল আমিন ছানুবী বলেন, ‘ছনুয়া মধুখালীর কয়েকটি দোকানে দিনে-রাতে জুয়ার আসর বসানোর বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। আমি এখনো মেম্বার হিসেবে শপথগ্রহণ করিনি। শপথ নেওয়ার পর চৌকিদার ও এলাকার সচেতন জনসাধারণকে নিয়ে জুয়া খেলা বন্ধ করবো।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল উদ্দিন বলেন, ‘এ বিষয়ে কেউ আমাদেরকে অবগত করেননি। আপনার কাছ থেকেই জানলাম। আমি ওই এলাকায় পুলিশ পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেব।’

মতামত