,

সাংবাদিক রেজা মুজাম্মেলের নতুন বই ‘করোনার দিনকাল’

নাগরিক নিউজ: সারাবিশ্বকে কাঁপিয়ে তুলেছে করোনাভাইরাস। ভাইরাসটা বৈশ্বিক মহামারি আকার ধারণ করেছে। পৃথিবীর সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে চরমভাবে ভাবিয়ে তুলেছে। পক্ষান্তরে করোনার প্রথম ঢেউয়ের চেয়ে দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কাটা আরও প্রবল বলে মনে করেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। ফলে করোনা প্রভাব ফেলেছে বহুমাত্রিকভাবে। বিপর্যস্ত করে তুলেছে মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রা। আঘাত করেছে অর্থনীতিতে। ব্যস্ত করে তুলেছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনাকে।

করোনার প্রথম দিক থেকেই নানা বিষয় নিয়ে প্রতিবেদন ও প্রবন্ধ লিখেছেন দেশের সর্বাধিক প্রচারিত বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরোর নিজস্ব প্রতিবেদক রেজা মুজাম্মেল। পরবর্তীতে প্রতিবেদন তৈরিতে নিজস্ব পর্যবেক্ষণ, অভিজ্ঞতা, চোখের দেখা লিখতে না পারা অব্যক্ত কথা-অভিজ্ঞতা এবং করোনা কালের নানা দিক নিয়ে লিখেছেন ‘করোনার দিনকাল’ নামের একটি পূর্ণাঙ্গ গ্রন্থ। বইটিতে আছে করেনাভাইরাস নিয়ে আদ্যোপান্ত আলোচনা।

চারটি অধ্যায়ের ১৪৪ পৃষ্ঠার বইটিতে আছে করোনার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে লেখকের একটি নিজস্ব পর্যবেক্ষণ, এক নজরে চট্টগ্রামের পরিস্থিতি, ভাইরাস কি, এর ধরণ, সংক্রমণের হার, পৃথিবীতে নতুন নতুন ভাইরাসের উৎপত্তি, করোনাকালে স্বাস্থ্য বিভাগের ভূমিকা, চট্টগ্রামে দেশের কম বয়সী রোগী শনাক্ত ও চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হওয়া, অনলাইনে করোনার রিপোর্ট প্রাপ্তিতে ওয়াই স্যাবের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ, করোনার আশির্বাদ আইসোলেশন সেন্টার, করোনায় চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য খাতের অর্জন, করোনায় জীবনের সঙ্গী হওয়া নতুন নতুন শব্দ, অবশেষে প্রতিক্ষার টিকা উৎসব এবং শিশুদের টিকার সাফল্য নিয়ে করোনার টিকা উৎসব কর্মসূচি সফলভাবে পরিচালনা করার কথা বিস্তারিত বিধৃত হয়েছে বইটিতে। প্রতিটি লেখায় বিষয়ের গভীরে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। এখানেই একজন লেখকের স্বার্থকতা।
করোনা মোকাবিলায় সরাসরি সম্পৃক্ত ছিল চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল ইনফেকসাস ডিজিজ (বিআইটিআইডি), চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল এবং চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। তাই করোনার দিনকাল বইটিতে চট্টগ্রামের তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথ, চমেকের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ, বিআইটিআইডি’র ল্যাব ইনচার্জ ডা. শাকিল আহমেদ এবং মাঠ প্রশাসনের হাটহাজারী ও পটিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং জেলা প্রশাসনের একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা, কাজের তিক্ততা এবং অনুভূতিগুলো নিয়ে সাক্ষাতকার গ্রহণ করা হয়েছে। বইটির ভূমিকা লিখেছেন করোনাকালে স্বাস্থ্যখাত নিয়ে ব্যস্ত থাকা চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি। যিনি চট্টগ্রাম করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিবও। করোনার দিনকাল বইটির গুরুত্ব বাড়িয়েছে করোনার নানা দিক নিয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত ১৫টি প্রবন্ধ। নানা বিষয়বৈচিত্র সম্বলিত প্রবন্ধগুলোতে স্থান পেয়েছে বিষয়ভিত্তিক আদ্যপান্ত আলোচনা। এসব প্রবন্ধে আছে স্বাস্থ্যখাতের সংকট-সমস্যার চিত্র থেকে শুরু করে ত্রাণ চুরির দুঃখজনক ঘটনার বর্ণনাও। পক্ষান্তরে করোনাকালের কিছু ভয়াবহ চিত্র অনুধাবনে যুক্ত করা হয়েছে কিছু মর্মস্পর্শী মনকাড়া ছবি। বলা যায়, এসব ছবি আগামীতে করোনাকালের দিনগুলোর একটি ইতিহাস হয়ে থাকবে। এসব অনুষঙ্গের সঙ্গে মলাটবদ্ধ করা হয়েছে লেখকের প্রকাশিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ নিউজ। সামগ্রিক বিশ্লেষণে বইটি আগামীতে করোনার ইতিহাসের সমৃদ্ধ একটি গ্রন্থ হিসেবে বিবেচিত হবে।
গ্রন্থটি প্রকাশিত হয়েছে ‘আপন আলো’ প্রকাশনী থেকে। দৃষ্টিনন্দন প্রচ্ছদ করেছেন প্রচ্ছদশিল্পী শাদ ইরশাদ, ফ্ল্যাপের ছবি তুলেছেন বাংলানিউজ এর সিনিয়র ফটোজার্নালিস্ট সোহেল সরওয়ার, অ্যালবামের ছবি তুলেছেন দৈনিক আজাদীর ফটোজার্নালিস্ট আমিনুল ইসলাম মুন্না ও প্রথম আলোর ফটোজার্নালিস্ট জুয়েল শীল। বইটি উৎসর্গ করা হয়েছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এবং করোনার সকল সম্মুখযোদ্ধাদের প্রতি। লেখকের প্রথম গ্রন্থ ‘কর্ণফুলী বাঁচলে দেশ বাঁচবে’।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি লেখক সস্ত্রীক করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন।

বইটির মলাটমূল্য ২৮০ টাকা, পাওয়া যাবে চট্টগ্রামের বাতিঘর ও চেরাগী মোড়স্থ নন্দনে।

মতামত