,

বায়তুশ শরফের পীরের গা ছুঁয়ে দোয়া নিলেন করোনা পজিটিভ বাবুল

করোনা পজিটিভ হওয়ার রাতেই রাউজানের উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম এহেছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল বায়তুশ শরফের পীর মাওলানা মোহাম্মদ কুতুব উদ্দীনের সংস্পর্শে গিয়েছিলেন। হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন পীরকে তিনি দেখতে যান মাস্ক ও গ্লাভসের মতো সাধারণ সুরক্ষাসামগ্রী ছাড়াই। ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, চেয়ারম্যান বাবুল এ সময় পীরকে স্পর্শও করেছেন।

জানা গেছে, মাওলানা কুতুব উদ্দীন ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপজনিত সমস্যা নিয়ে মঙ্গলবার (১৯ মে) দুপুরের পর চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি হন। ওই দিনই সন্ধ্যায় রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহেছানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল কোন মাস্ক বা গ্লাভস না পরে পীর সাহেবকে স্পর্শ করে দোয়া নিয়েছেন। আবার ওই রাতেই প্রকাশিত রিপোর্টে বাবুলের দেওয়া নমুনায় করোনা পজিটিভ আসে।

এদিকে বুধবার রাতেই আইসিইউযুক্ত অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে মাওলানা কুতুব উদ্দীনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানী ঢাকার আনোয়ার খান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

তিনি চট্টগ্রামবাসীর কাছে সুস্থতার জন্য দোয়া কামনা করেছেন জানিয়ে তার এক ঘনিষ্ঠজন চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, ‘পীর সাহেব হুজুর দীর্ঘদিন ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। মঙ্গলবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে আমরা তাকে মেট্রোপলিটন হসপিটালের আইসিইউতে ভর্তি করাই। ওই দিন ইফতারের পর রাউজানের উপজেলা চেয়ারম্যান এহেছানুল হায়দার বাবুল হুজুরের কাছে থেকে দোয়া নিতে আসেন। তিনি হুজুরের ভক্ত। কিন্তু যেহেতু তার করোনাসন্দেহে তিনি নমুনা দিয়েছেন, উনার উচিত ছিল সতর্ক থাকা। দায়িত্বশীল পদের ব্যক্তির এমন অসতর্কতা দুঃখজনক।’

এ বিষয়ে কথা বলতে রাউজানের উপজেলা চেয়ারম্যান এহেছানুল হায়দার বাবুলের মুঠোফোনে ফোন করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়।

সূত্র: চট্টগ্রাম প্রতিদিন

মতামত