,

লেখিকা মমতাজ সবুর সাহিত্য পুরস্কার অনুষ্ঠান সম্পন্ন

নাগরিক নিউজ: চট্টগ্রাম একাডেমি প্রবর্তিত মমতাজ সবুর সাহিত্য পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান গতকাল সম্পন্ন হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ড. অনুপম সেন বলেন, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন একজন বড় মাপের সাহিত্যিক। তার ‘হাঙর নদী গ্রেনেড’ একটি অসাধারণ উপন্যাস। এতে দেশের মুক্তিযুদ্ধ, মাতৃভক্তি, মায়ের দেশপ্রেম সুনিপুণভাবে চিত্রিত হয়েছে।তিনি তরুণ প্রজন্মের জন্য লিখেছেন। এ জন্য আগামী প্রজন্মও তাকে মনে রাখবে।

বাংলা সাহিত্যে সেলিনা হোসেন অনন্যসাধারণ ব্যক্তিত্ব হিসেবে উজ্জ্বল হয়ে থাকবেন বলে মন্তব্য করেছেন খ্যাতিমান সমাজবিজ্ঞানী ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. অনুপম সেন।

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক আইন উপদেষ্টা এএফ হাসান আরিফ, শিক্ষাবিদ ড. মাহবুবুল হক, চারুকলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ রীতা দত্ত, সাহিত্যিক ড. আনোয়ারা আলম, মমতাজ সবুরের মেয়ে অধ্যক্ষ তহুরীন সবুর ডালিয়া, কবি বিশ্বজিৎ চৌধুরী।

সূচনা বক্তব্য দেন একাডেমি প্রতিষ্ঠাতা শিশুসাহিত্যিক রাশেদ রউফ। সঞ্চালক ছিলেন বাচিকশিল্পী আয়েশা হক শিমু। অনুভূতি ব্যক্ত করেন পুরস্কারপ্রাপ্ত কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

তিনি বলেন, লেখকের কোনো জেন্ডার নেই। সৃজনশীল জায়গাকে যারা পরিচর্যা করেন তাদের মূল্যায়ন করতে হবে। মমতাজ সবুর একজন সাহিত্যিক ছিলেন। তিনি মাতৃভাষার পক্ষে চেতনা ও মননশীলতা নিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন।

আইনবিদ হাসান আরিফ নতুন প্রজন্মেকে বইয়ের প্রতি আগ্রহী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, কোনো ইনজেকশন, ট্যাবলেট দিয়ে বুদ্ধিবৃত্তি, মনমানসিকতা উন্নত করা যায় না। এ জন্য পাঠাভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। বেশি বেশি বই পাঠ করতে হবে। কেননা বইয়ের কোনো বিকল্প নেই।

ড. মাহবুবুল হক বলেন, সেলিনা হোসেন কেবল বড়দের নয় শিশুদের জন্য গল্প-উপন্যাস লিখেছেন। তিনি ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্বকে নিয়ে সাহিত্য নির্মাণ করেছেন। তার উপন্যাসে চিত্রিত হয়েছে ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, সংগ্রাম ও সমাজ চেতনা। তিনি কেবল নারী বা পুরুষ নন, মানুষের প্রতিনিধিত্ব করেছেন।

ড. আনোয়ারা আলম বলেন, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন আমাদের চেতনার বাতিঘর। তিনি উভয় বাংলায় শুধু নন, সারা বিশ্বের গর্ব। তিনি কলম দিয়েই মানুষের মনকে জয় করেছেন।

অনুষ্ঠানে কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেনকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন আইনবিদ এএফ হাসান আরিফ। ক্রেস্ট, সনদ ও সম্মাননার অর্থ তুলে দেন ড. অনুপম সেন।
অনুষ্ঠানে লেখিকা মমতাজ সবুরের পুত্র বিচারপতি বোরহান উদ্দীন, বাঁশখালী সমিতি চট্টগ্রামের সভাপতি প্রফেসর ডা. প্রভাত চন্দ্র বড়ুয়া, সহ সভাপতি মমতাজ সবুরের পুত্র এডভোকেট এ.এইচ.এম জিয়া উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক লায়ন এম আইয়ুব, যুগ্ম সম্পাদক নাফিজ মিনহাজ, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু ওবাইদা আরাফাত প্রমুখ।

মতামত