জার্মানির মুসলিমবিদ্বেষী ওয়াগনারের ইসলাম গ্রহণ

জার্মানির মুসলিমবিদ্বেষী ওয়াগনারের ইসলাম গ্রহণ

জার্মানির কট্টর মুসলিম বিদ্বেষী দল হলো অল্টারনেটিভ ফার ডয়েচল্যান্ড পার্টি তথা এএফডি। এই দলটি সর্বশেষ নির্বাচনে তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। সবাই জানেন যে ২০১৪ সালে যখন ইউরোপের সব দেশ মুসলিম শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে অস্বীকার করেছিল, তখন তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন অ্যাংগেলা মার্কেল। তার এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কট্টর প্রচারণা চালায় এএফডি। বলা যায় জার্মানিতে মুসলিম বিরোধী ফেনোমেনা তৈরি করে ফেলে দলটি। আর তাদের উত্থানের কারণে যে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে তাতে করে গত চার মাসেও মের্কেল জোট সরকার গঠন করতে পারেনি। এরমধ্যেই আজ এমন একটা খবর আসছে যা আমাদের সব মুসলমানকে আল্লাহর দরবারে সেজদা দিতে বাধ্য করবে। খবরটি হলো এএফডির কট্টর মুসলিম বিদ্বেষী আর্থার ওয়াগনার নিজেই ইসলাম গ্রহণ করেছেন। আল্লাহু আকবার। যেই ব্যক্তি ছিলেন তাকেই আল্লাহ মুসলিম হিসেবে কবুল করেছেন। আলহামদুলিল্লাহ, আর্থার এখন আমাদের মুসলিম ভাই। আর্থার পূর্ব জার্মানির ব্রান্ডেনবার্গ রাজ্য এএফডি পার্টির প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। তিনি ইসলাম গ্রহণ করে গত ১১ জানুযারি তিনি পার্টি থেকে পদত্যাগ করেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্লিনভিত্তিক দৈনিক ডার টাগেশপিগেল। মাঝরাতে ঘুম ভাঙার পর এই খুশির খবরটি লিখলাম এ নিয়তে যে হে মুসলিম ভাই ও বোনেরা আসুন আমরা সবই আল্লাহর ওপর ভরসা করি। তিনি সবচেয়ে বড় রণনীতি ও রণকৌশলের মালিক। তিনি যদি চান তাহলে চরম ইসলাম বিদ্বেষীকেও মুসলিমে পরিণত করে দিতে পারেন। তিনি আমাদের অভাবনীয় সাফল্য দিতে পারেন। কাজেই মহান ইসলামের ভালোবাসা-দরদ-সহমর্মীতার কথাগুলো ছড়িয়ে দিন। ঘৃণার পরিবর্তে ভ্রাতৃত্বের কথা বলুন। হিন্দু-বৌদ্ধ-ইহুদি-খ্রিস্টান-নাস্তিকরা অমুসলিম হলেও আদম-হাওয়ার (আ.) সন্তান হিসেবে তারা আমাদের খান্দানি ভাই। তাদের হেদায়েতের জন্য দোয়া করুন, তাদের সাথে উত্তম কথা বলুন, তাদের ব্যথার দোসর হোন, তাদের রূহকে জাগিয়ে তুলুন। ইনশাআল্লাহ, আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন কায়েম হবে। আমাদের কাজ হলো ইসলামের ইনসাফ ও ইহসানের বার্তাটি তুলে ধরা। শোকরিয়া,...
শেষ মুনাজাতে ইজতেমায় মানুষের ঢল

শেষ মুনাজাতে ইজতেমায় মানুষের ঢল

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত আজ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা ১১টার মধ্যে শুরু হবে। এর মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। রাজধানীর কাকরাইল মসজিদের ইমাম হাফেজ মোহাম্মদ জোবায়ের আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন ইজতেমা ময়দানের মুরব্বী মো. গিয়াস উদ্দিন। ইবাদাত বন্দেগি, জিকির আর কোরআন হাদিসের আলোকে বয়ানের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেওয়া তাবলিগ জামাতের সমবেত মুসল্লিরা দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত করেছেন। রোববার সকালে বাংলাদেশের মাওলানা আব্দুল মতিনের বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় তৃতীয় দিনের কার্যক্রম। ইজতেমাস্থলে তাবলিগ জামাতের সমবেত দেশি-বিদেশি মুসল্লিদের পাশাপাশি ঢাকা, গাজীপুর ও আশপাশের জেলার কয়েক লাখ মুসল্লি বরাবরের মতো এ আখেরি মোনাজাতে শরিক হবেন। গত দুই দিনের মতো আজ টঙ্গীর আবহাওয়া রয়েছে অনুকুলে। শীতের তীব্রতাও প্রথম পর্বের চেয়ে তুলনামূলক কম। ফলে দ্বিতীয় পর্বে মুসল্লিদের উপস্থিতি তুলনামূলকভাবে বেশি লক্ষ্য করা...
শুভ জন্মদিন ছাত্রনেতা আরিফুজ্জামান আরিফ

শুভ জন্মদিন ছাত্রনেতা আরিফুজ্জামান আরিফ

শুভ জন্মদিন আরিফুজ্জামান। আজ দক্ষিণজেলা ছাত্রলীগের শীর্ষনেতা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, বাঁশখালী উপজেলার নব-নির্বাচিত সেক্রেটারি আরিফুজ্জামান আরিফের জন্মদিন। জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা রইল। চট্টগ্রাম দক্ষিণজেলা ছাত্রলীগের পুনর্গঠনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা ছাত্রলীগের এই ত্যাগী নেতার কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেয়েছেন কিছুদিন আগে। দীর্ঘদিন পর হলেও ত্যাগের এই মূল্যায়ন প্রাপ্যের চেয়ে কম বলেও উল্লেখ করেছিলেন কেউ কেউ। দক্ষিণজেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতা আবদুল্লাহ কবির লিটন ও ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত এ ছাত্রনেতার গ্রামের বাড়ি বাঁশখালীর বাহারছড়া ইউনিয়নের বাহারছড়া গ্রামে। তিনি সম্ভ্রান্ত মুসলিম ও আওয়ামী পরিবারের সন্তান। তাঁর পিতা আবুল কালাম মাস্টার প্রবীণ আওয়ামী রাজনীতিবিদ হিসেবে স্বনামে পরিচিত। তিনি বাণীগ্রাম সাধনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধাকালীন ইউনিয়ন ত্রাণকমিটির প্রধান, দীর্ঘ ২৭ বছর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি, মুক্তিযোদ্ধাকালীন থানা আওয়ামীলীগের সদস্য এবং পরবর্তীতে থানা আওয়ামীলীগের ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন। আরিফ বাণীগ্রাম স্কুল থেকে এসএসসি, ক্যান্টনমেন্ট কলেজ থেকে এইচএসসি এবং চট্টগ্রাম কলেজ থেকে অনার্স – মাস্টার্স সম্পন্ন করে বর্তমানে চট্টগ্রাম আইন কলেজে অধ্যয়নরত...
শুভ জন্মদিন বাঁশখালীর কৃতি সন্তান ‘প্রফেসর জামাল উদ্দীন চৌধুরী’

শুভ জন্মদিন বাঁশখালীর কৃতি সন্তান ‘প্রফেসর জামাল উদ্দীন চৌধুরী’

শহীদ হাবিব: যুগে যুগে বাঁশখালীর মাটিতে জন্ম নিয়েছেন অনেক জ্ঞানী গুণী ও মনীষী। যারা ধন্য করেছেন বাঁশখালীর মাটিকে, যারা এই বাঁশখালীকে পরিচিত করেছেন বিশ্বের দরবারে, মাথা উঁচু করেছেন বাঁশখালীর। আজ বাঁশখালীর এমনই একজন কীর্তিমান পুরুষের জন্মদিন। যিনি আপন আলোয় সমুজ্জ্বল মানুষ গড়ার এক জীবন্ত কারিগর, যিনি দেশ থেকে দেশান্তরে নিরলসভাবে করে গেছেন জ্ঞানের চাষাবাদ। তিনি হলেন বাঁশখালীর পুইছড়ি ইউনিয়নের কৃতী সন্তান বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও কলামিস্ট প্রফেসর জামাল উদ্দীন চৌধুরী স্যার। আজ স্যারের ৬৫ তম জন্মবার্ষিকী। এই শুভক্ষণে স্যারের প্রতি রইল বিনম্র শ্রদ্ধা-ভালবাসা ও অজস্র শুভ কামনা। সংক্ষিপ্ত বর্ণনায় প্রিয় জামাল স্যার ____________________­_____________ প্রফেসর জামাল উদ্দীন চৌধুরী। এক কথায় মানুষ গড়ার এক জীবন্ত কারিগর। তিনি একাধারে শিক্ষক, কলামিস্ট ও সমাজসেবক। জন্মগ্রহণ করেন ১৯৫২ সালের ১ অক্টোবর বাঁশখালীর পুইছড়ি ইউনিয়নের সম্ভ্রান্ত পুুইছড়ি জমিদার বাড়িতে। পিতা মাওলানা আবদুর রহমান চৌধুরী, মাতা ছেমন আরা বেগম চৌধুরাণী। তিনি ১৯৮৭ সালে চট্টগ্রামের রাউজানের মহিয়সী নারী ফাউজিয়া শেলী চৌধুরীর সাথে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন। ব্যক্তিগত জীবনে জামাল উদ্দীন চৌধুরী দুই সন্তানের জনক। এরা হলেন- সেজাদ রহমান চৌধুরী অনিক এবং রাগিব রহমান চৌধুরী। বড় ছেলে সেজাদ রহমান চৌধুরী University College London থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন এবং ছোট ছেলে রাগিব রহমান চৌধুরী বিশ্ববিখ্যাত Oxford University তে স্নাতক পর্যায়ে অধ্যয়নরত আছেন। # শিক্ষাজীবনঃ এই মহান জ্ঞান তাপসের পাঠ্যজীবন শুরু হয় ১৯৫৭ সালে বাঁশখালীর পশ্চিম পুইছড়ি গ্রামের ইজ্জতীয়া প্রাইমারী স্কুলে। তিনি বাঁশখালীর নাপোড়া শেখেরখীল উচ্চ বিদ্যালয় হতে ১৯৬৭ সালে এসএসসি পাশ করেন। তারপর ১৯৬৯ সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ হতে এইচএসসি পাশ করেন। পরবর্তীতে তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হতে গণিত বিভাগে কৃতিত্বের সঙ্গে ১৯৭৫ সালে স্নাতক এবং ১৯৭৬ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। তারপর তিনি যুক্তরাজ্যের Greenwich University London হতে ১৯৮৭ সালে কৃতিত্বের সহিত PGCE সম্পন্ন করেন। # পেশাজীবনঃ অসম্ভব মেধা...
বাঁশখালী পৌরসভা ৯নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সম্মেলন সম্পন্ন

বাঁশখালী পৌরসভা ৯নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সম্মেলন সম্পন্ন

বাঁশখালী পৌরসভা ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিয়াউল হাছান হোসাইনী ও সাধারণ সম্পাদক ওসমান গণি মুজাহিদের যৌথ সাক্ষরে আজিজুল হক বাদশাহকে সভাপতি, রিফাজ বিন শাহাদতকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, সাকের উল্লাহকে সাধারণ সম্পাদক আমানুল্লাহকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৮১জন বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদিত হয়। পৌরসভা ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদক রিফাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে ৯নং ওয়ার্ড ছাত্রদল নেতা বোরহানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পৌরসভা বিএনপি র সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাদত হোসাইন আজগর, প্রধান বক্তা পৌর ছাত্রদল ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিয়াউল হাছান হোসাইনী, বিশেষ বক্তা ছাত্রদল সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাংগীর আলম, যুগ্ম সম্পাদক আমিনুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক নক্বী, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আশেকুল ইসলাম,৫নং ওয়ার্ড সভাপতি হুমায়ুন আহমেদ রণি,৩নং ওয়ার্ড সহ সভাপতি নুরুল আব্বাস,৮নং ওয়ার্ড সিনিয়র সহ-সভাপতি জিয়াউর রহমান, মোঃ জাবের। বক্তব্য রাখেন আজিজুল হক বাদশাহ,রিফাজ বিন শাহাদত,সাকের উল্লাহ,মোঃ রশিদ, আমানুল্লাহ, ফয়সাল, বোরহান প্রমুখ। ( প্রেস...
রামুতে বর্ণাঢ্য উৎসবে প্রতিমা বিসর্জন

রামুতে বর্ণাঢ্য উৎসবে প্রতিমা বিসর্জন

পাঁচদিনের উৎসবমুখরের মাধ্যমে পূজা শেষে কক্সবজারের রামু বাঁকখালী নদীতে সম্প্রীতির বন্ধনে প্রতিমা বিসর্জন সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (৩০ শে সেপ্টেম্বর) বাঁকখালীর চরে সকল ধর্মের মানুষের উপস্থিতিতে সম্প্রীতির এক সেতু বন্ধন তৈরি হয়। বিসর্জন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শাহজাহান আলি বলেন, যে কোন ধর্মীয় উৎসব সকলের মাঝে সম্প্রীতি বন্ধনের সৃষ্টি করে। এ বছরও আনন্দঘন পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব পালন হয়েছে। শারদীয় দুর্গোৎসব শুধু বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য নয়, এটি জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে আমাদের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির চেতনায় জাতীয় ঐক্যের একটি মহামিলনোৎসব। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, এখানে সকল ধর্মের মানুষের সহবস্থান রয়েছে। বিশ্বে এ এক অনন্য ইতিহাস। তিনি আরো বলেন, দীর্ঘকাল থেকে রামুতে উৎসব মূখর পরিবেশ ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন করা হচ্ছে। দুর্গাপূজার সার্বজনীন আবেদনে মানুষে মানুষে সৌহার্দ্য, ভ্রাতৃত্ব ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলার যে চর্চা বিরাজমান, সে চর্চায় সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতির মেলবন্ধন তৈরী করে। মানুষ মানুষের জন্য সুসম্পর্কের বারতা নিয়ে আসে। এই শুভ গুণগুলোকে আমরা প্রতিনিয়ত চর্চা করলে, রামুর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কখনো নষ্ট হবে না। রামু বাঁকখালীর চরে প্রতিমা বিসর্জন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রতন মল্লিকের সভাপতিত্বে প্রতিমা বিসর্জন পরিষদের সহ-সভাপতি সুশান্ত পাল বাচ্চুর সঞ্চালনায় বিসর্জন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ফতেখাঁরকুল চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, রামু থানার ওসি (তদন্ত) মিজানুর রহমান। এতে অন্যান্যদে মাঝে বক্তব্য ও উপস্থিত ছিলেন, বিসর্জন উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা ননী গোপাল দে, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক প্রকাশ সিকদার, কালি মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক চন্দন দাশ গুপ্ত, রামু উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নিলোৎপল বড়–য়া, সাংবাদিক খালেদ শহীদ, খালেদ হোসেন টাপু, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান আনছারুল হক ভূট্টো, হিন্দু নেতা ছোটন দে, রূপন ধর, অনাথ বিন্দু ধর, রামু সৎসঙ্গ আশ্রমের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ ভট্টাচার্য্য প্রমুখ। বিজর্সন মন্ত্র...