,

সাতকানিয়ার এমপি ড. আবু রেজা নদভীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের নিন্দা

চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনের সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন গণমাধ্যমে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও কুরুচিপূর্ণ সংবাদ প্রকাশের জন্য তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সাতকানিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সালাহ্উদ্দিন হাসান চৌধুরী।

তিনি বলেন, করোনা সংকটের এই ক্রান্তিলগ্নে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় হাজার হাজার কর্মহীন গরিব, অসহায়, হতদিরদ্র দিনমজুর মানুষের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার জি আর চাল ইউনিয়ন পরিষদে দেওয়া হয়। বিভিন্ন জায়গায় এই সরকারি ত্রাণ সুষ্ঠু ও সুষম বন্টন না হওয়ার অভিযোগের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম-১৫ আসনের সাংসদ প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী উপজেলা পরিষদের মুখ্য উপদেষ্টা হিসেবে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবে কর্মহীন হতদরিদ্রের মাঝে সরকারি ত্রাণের সুষ্ঠু বন্টন স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২৫ শতাংশ সংসদ সদস্য ১৫ শতাংশ উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান এবং ৬০ শতাংশ পৌরসভা মেয়র, ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের অনুকূল বরাদ্দ পূর্বক হতদরিদ্রদের মাঝে বিতরণের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশনা প্রদানপূর্বক ডিও লেটার প্রদান করেন। এতে সাংসদ আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভীর লক্ষ্য উদ্দেশ্য ছিল এভাবে সুষ্ঠু বন্টনের মাধ্যমে সরকারি ত্রাণ বিতরণ করা হলে এলাকার সর্বস্তরের আর্তপীড়িত মানুষ ত্রাণ পাবে। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনার আলোকে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক মানবিক বিবেচনায় পূর্বক দলমত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষের মাঝে সুষ্ঠুভাবে বন্টন না হওয়ায় খাদ্য সংকট বৃদ্ধি পায়। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বাররা এলাকা ভিত্তিক আত্বীয়করণ, এলাকার পাড়া/মহল্লার মানুষকে অগ্রাধিকার দেওয়া, আবার অনেকজনকে একাধিকবার দেওয়া এবং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সাথে মতের অমিল ব্যক্তিদের ত্রাণ পাওয়া থেকে বঞ্চিত করে। ত্রাণ বিতরণে বৈষম্যের কারণে প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নে জনগণের মাঝে ক্ষোভ অসন্তোষ সৃষ্টি হয় অনেক জায়গায় আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ঘটে, এখানে এমপি মহোদয়ের ২৫ শতাংশ বিতরণ করার বিষয়টি ব্যক্তিগত নয়। এমপি মহোদয় উক্ত ২৫ শতাংশ এলাকার ত্রাণ বঞ্চিত দুস্থ জনসাধারণের মাঝে বিতরণ করার কথা বলেছেন। উক্ত ত্রাণ তিনি তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন নাই। উল্লেক্ষ্য যে, সরকারী প্রদত্ত ত্রাণ ব্যাতিত সাংসদের এনজিও প্রতিষ্ঠান আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন এবং ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার ২২ হাজার অসহায় ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছেন যা নিতান্তই প্রসংশনীয় এবং বর্তমান কঠিন পরিস্থিতিতে এমপি মহোদয়ের নির্দেশনা যথার্থ ও সময়োপযোগী বলে মনে করি।

তিনি আরো বলেন, এমপি মহোদয়ের নির্দেশনাকে কেন্দ্র করে একটি কুচক্রী মহলের প্ররোচনায় এই বিষয়টি কে একশ্রেণীর সংবাদদাতার মাধ্যমে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও বিকৃতভাবে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে উপস্থাপন করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির প্রয়াস চালিয়েছে। তিনি এই ধরনের সংবাদ প্রকাশের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং বস্তনিষ্ট সংবাদ প্রকাশের জন্য সকল গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি আহবান করেন।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

মতামত