,

আজানের পাখি বিলালকে নিয়ে বাপ্পা আজিজুলের উপন্যাস ‘মুয়াজজিন’

মহান একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০ এ প্রকাশিত হলো বাপ্পা আজিজুল’র নতুন বায়োনভেলা (জীবনোপন্যাস) ‘মুয়াজজিন’। গতবছর প্রকাশিত আবু যার গিফারি রা.কে নিয়ে লেখা #নিঃসঙ্গ_পথিক বায়োনভেলাটি ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা পায়। এবছর ব্যাক টু ব্যাক উপন্যাস বিলাল রা.কে নিয়ে #মুয়াজজিন।

বিলালকে নিয়ে আমাদের সমাজে সামগ্রিক পাঠ কখনো হয়নি।

বিলাল রা. বলতে আমরা একজন নাকবোঁচা হাবশি দাস বুঝি। যিনি অকথ্য নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন। পরবর্তী সময়ে ইসলামের প্রথম মুয়াজ্জিন। রাসুল সা. এর শাহাদাতের পর সিরিয়া চলে যান। ফিরে এসে হাসান-হোসাইনের রা. অনুরোধে আযান দিতে গিয়ে বেহুঁশ হয়ে পড়েন। প্লেগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এই তো!

অথচ বিলালের রয়েছে বর্ণাঢ্য মাদানি জীবন।
– মুসয়াব ইবনে উমায়ের রা. এর পরে মদিনায় হিজরত করে শিক্ষক হিসেবে আবির্ভূত হন।
– রাসুলুল্লাহ সা. এর ব্যক্তিগত সচিব হিসেবে নিয়োগ পান।
– ইসলামের প্রথম মুয়াজ্জিন তো বটেই আল্লাহর রাসুলের বিশেষ মুয়াজ্জিন।
– নবগঠিত মদিনা নগর রাষ্ট্রের অর্থবিভাগের দায়িত্ব ন্যস্ত হয় তার ওপর।
– প্রতিটি যুদ্ধে বীরত্বের সাথে অংশ নেন। বিশেষ করে বদর ও খাইবারে।
– ইতিহাসের একমাত্র ব্যক্তি যিনি তিনটি প্রধান ও গুরুত্বপূর্ণ মসজিদ (মসজিদে নববী, বায়তুল্লাহ ও আল আকসা) এ আযান দেয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেন।
– নবি পরবর্তী যুগে আবু বাকরের উপদেষ্টা কাউন্সিলের একজন ছিলেন।
– মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত জিহাদে সক্রিয় ছিলেন৷

আরও আরও কত কী! এমনই বিষয়গুলো নিয়ে পড়ুন উপন্যাস

#মুয়াজজিন
সাইয়িদুনা বিলাল ইবনে রাবাহ রা.

লেখক : আজিজুল বাপ্পা
প্রকাশ : প্রচ্ছদ প্রকাশন
মুদ্রিত মূল্য : ১৩০৳
স্টল নং : ৬৫৪
সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, ঢাকা। পাওয়া যাবে চট্টগ্রাম বইমেলার ৩৬ নং স্টলেও।

মতামত