,

প্রকল্পের আওতায় পরিচ্ছন্নতা পরিচালনায় ত্রিমুখী বৈঠকের উদ্যোগ নিচ্ছেন মেয়র

জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের আওতায় ড্রেন পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে দায়িত্ব বণ্টনের জন্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাথে ত্রিমুখী বৈঠকের উদ্যোগ নিতে যাচ্ছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। চলতি সপ্তাহের মধ্যে এই বৈঠক আয়োজন করে দ্রুত সময়ের মধ্যে যাতে উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা যায় সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। জলাবদ্ধতা নিরসনে সহায়তার অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নগর জুড়ে নালা ও ড্রেন পরিচ্ছন্নতায় ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরু করেছে।

আজ সকালে দেওয়ান বাজার ওয়ার্ডের খলিফা পট্টি
এলাকায় শুরু হওয়া প্রোগ্রাম উদ্বোধন করেছেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। প্রোগ্রাম উদ্বোধন শেষে গণমাধ্যমের কাছে দেয়া বক্তব্যে তিনি বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন জনগণের সেবা নিশ্চিত করতে অঙ্গীকার বদ্ধ। জনগণের কাছে আমাদের জবাবদিহিতা রয়েছে। আগামী বর্ষার আগে জলাবদ্ধতা নিরসন করা অসম্ভব একটি ব্যাপার। আমরা প্রতিটি ওয়ার্ডে সপ্তাহে ৪ দিন করে ড্রেন নালা পরিস্কার করার কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। প্রত্যেকদিন ৫ টি ওয়ার্ডে কার্যক্রম পরিচালিত হবে। এ কাজে ২৫০ জন শ্রমিক দায়িত্ব পালন করছে। ধারাবাহিক ভাবে ৪১ ওয়ার্ড জুড়ে কার্যক্রম চালানো হবে।

তিনি বলেন, বৃষ্টির পানি ড্রেন, নালা হয়ে খালে বা নদীতে যাবে এক্ষেত্রে ড্রেনগুলোতে পানির স্বাভাবিক প্রবাহ নিশ্চিত করতে না পারলে বর্ষায় জলাবদ্ধতা নিয়ন্ত্রণ করা স্বপ্নের ব্যাপার। আমরা সারা বছর ড্রেন স্বাভাবিক রাখতে চাই। সেজন্য প্রয়োজনীয় সাপোর্ট আমাদের লাগবে। আগেও আমরা জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের আওতায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চালানোর আগ্রহ প্রকাশ করেছিলাম। এই কাজের বিপরীতে প্রকল্পে বরাদ্দকৃত অর্থ চেয়েছিলাম। তা হয়নি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন জনগণের কল্যানের জন্য, দুর্ভোগ নিরসনের জন্য। শুধু সিডিএ’র প্রকল্প নয়, ওয়াসা পিডিবিকেসহ মোট চারটি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ২০১৭ সালে সিডিএ’র প্রকল্পটি শুরু হয়। কিন্তু দুঃখজনক ভাবে এখনো প্রকল্পের ন্যুনতম কাজও করা হয় নি। এমতাবস্থায় জলাবদ্ধতার ভয়াবহতার কথা চিন্তা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আমাকে ক্রাশ প্রোগ্রাম চালানোর দায়িত্ব দিয়েছেন। কিন্তু জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্প বাস্তবায়ন সময়ের ব্যাপার। এক্ষেত্রে প্রকল্পের আওতায় ড্রেন, নালা পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে সাব কন্ট্রাক্টে হলেও সিটি কর্পোরেশনকে দায়িত্ব দেয়া দরকার। এই কাজে সিটি কর্পোরেশনের পূর্ব অভিজ্ঞতা, দক্ষতা এবং প্রয়োজনীয় জনবলও রয়েছে। এ ব্যাপারে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য চলতি সপ্তাহের মধ্যে সবাইকে নিয়ে বৈঠকের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

ক্রাশ প্রোগ্রাম উদ্বোধনের সময় প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো সামসুদ্দোহা, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী সহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

এম.এ/

মতামত